• May 25, 2022

কে শময়িতা সেন?

 কে শময়িতা সেন?

মীর রাকেশ রৌশান

বাংলা কবিতামহলে নতুন প্রশ্ন ‘শময়িতা সেন কে?’ বনলতা সেনের কেউ নয়, উত্তর দিয়েছেন স্বয়ং কবি। কবি, প্রশান্ত হালদার। পশ্চিমবঙ্গ লিটিল ম্যাগাজিন মেলার প্রাক্কালে শ্যামল বৈদ্য অনুপ্রেরণা সিরিজে ‘মুক্তাঞ্চল’ থেকে বেরিয়েছে পাঁচটি বই। চারটি কবিতার, একটি গল্পের। তার মধ্যে শূন্য দশকের কবি প্রশান্ত হালদারের একফর্মা কাব্যপুস্তিকার নাম ‘শময়িতা সেন’। অনেকেই বলছেন শময়িতা সেন আছেন। কলকাতাতেই আছেন। কবিকে জিজ্ঞাসা করলে বলছেন, বইটা পড়ুন, টেক্সট নিয়ে কথা হোক। কিন্তু বাংলা কবিতা মহলে চর্চা বন্ধ হয়নি। কলকাতার এক বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কলার শময়িতা সেন-কে উদ্দেশ করে লেখা কিনা প্রশ্ন অনেকের।

কবি প্রশান্ত হালদারের ‘শময়িতা সেন’-এর সঙ্গে এবার মুক্তাঞ্চল থেকে প্রকাশিত ‘ম্যাট ব্ল্যাক’ কাব্যগ্রন্থের লেখক অংশুমান ফেসবুকে ‘শময়িতা সেন’ সম্বন্ধে পোস্ট করেছেন, “আপাতভাবে শুনে মনে হবে বনলতা সেন টাইপ মিউজ ধরে প্রেমযাতনার টানাটানি… না তা নয়, এ দুই শ্রেণী অবস্থানে থাকা মানুষের মধ্যে একজনের রাজনৈতিক মনোলগ… এবং প্রেমও এখানে রাজনীতি, রোম্যান্স, আর্তি, খোঁজ-এর বহিঃপ্রকাশ। এই সময়ে দাঁড়িয়ে এই বই লেখার ধ্বক অনেকের নেই…” ধ্বক কেন নেই, সে প্রশ্নের উত্তর একমাত্র মিলতে পারে সেই বইয়ের মধ্যেই।

কবি প্রশান্ত হালদারকে কাস্ট-রাজনীতি নিয়ে প্রায়শ সরব হতে দেখা যায়। অথচ শময়িতা ‘সেন’ কেন? হালদার, মন্ডল বা গায়েনের পরিবর্তে একজন সেন পদবিধারীর নাম নিয়ে কবিতার বইয়ের নাম কেন, এ প্রশ্নও উঠে এসেছে। কবি জানিয়েছেন শময়িতা সেন-তো আছেন। তাঁর কথা ভেবেই লেখা। এহেন পরিস্থিতিতে, যে সব মানুষ প্রশান্ত ও শময়িতা উভয়েরই পরিচিত তারা পড়েছেন দ্বিধায়, কারণ, কবিতায় আগেও উঠে এসেছে নানান নারীচরিত্রের নাম, যেমন, জীবনানন্দের বনলতা সেন, সুরঞ্জনা, সুনীলের নীরা, আরো অনেক, কিন্তু সেগুলো ছিল কাল্পনিক নাম। হয়তো বা কোনো বাস্তব নারীচরিত্রের অনুপ্রেরণায় সেগুলো তৈরি হয়ে থাকতে পারে। এইভাবে বাস্তব চরিত্রের নাম ব্যবহার করায় একপ্রকার রহস্যজনক কনফ্লিক্ট তৈরি হয়েছে, যা আরো গুঢ় হয়েছে কবি প্রশান্ত হালদারের সাথে শময়িতার কোনো সরাসরি সম্পর্ক না থাকায়। এমনকি তারা একে অপরের সাথে সমাজ মাধ্যমেও যুক্ত নন। তাহলে কেন প্রশান্ত তার এই সাম্প্রতিক কবিতায় শময়িতার নাম তুলে আনলেন, এর পেছনে কি কাজ করছে শুধুই রাজনৈতিক অবস্থানের সূচক নাকি এটা নিছক ধন্দ তৈরির কারসাজি, না প্লেটোনিক প্রেম নাকি কবিতার নিজস্ব চাহিদায় তৈরি হয়েছে এই চরিত্র যার সাথে বাস্তবের কোনো যোগাযোগ নেই?

বইটি এই মুহূর্তে পাওয়া যাচ্ছে বইমেলার লিটল ম্যাগাজিন প্যাভেলিয়ন সংলগ্ন শঙ্খ ঘোষ মঞ্চের পাশে মুক্তাঞ্চল-এর নম্বরবিহীন টেবিলে। আর অবশ্যই বইমেলার পরে অনলাইন অর্ডার করে পাওয়া যাবে, www.muktanchal.com-এ।

  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Related post