• July 3, 2022

Category : বিনোদন

পশ্চিমবঙ্গবিনোদন

বিরল ব্যতিক্রমী সঙ্গীতাচার্য আবু দাউদ

বিরল ব্যতিক্রমী সঙ্গীতাচার্য আবু দাউদ অনল আবেদিন প্রাচীন ভারতে শিক্ষাদান চলত গুরুগৃহে। তার মোক্ষম দৃষ্টান্ত রামায়ণ। সেখানে আমরা দেখি, রামচন্দ্রের যমজ সন্তান লব ও কুশের যাবতীয় শিক্ষাদীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে মহর্ষি বাল্মিকীর কুটিরে ও বাল্মিকীর হাতে। একই প্রথার প্রমাণ আছে মহাভারতে। গুরু দ্রোণাচার্যের গৃহে ও তাঁর হাতেই কৌরব ও পাণ্ডবরা শিক্ষাদীক্ষা পেয়েছিলেন বলে মহাভারতে উল্লেখ রয়েছে। আজ আর সেই রাম নেই, নেই সেই রাজত্বও। এখন আর শিক্ষাদান করা হয় না। এখন অনেক ক্ষেত্রেই মুদিখানার সওদার মতো শিক্ষা বিক্রি করা হয়। শিক্ষা কেনা হয়। গুরুশিষ্যের চালচিত্র আজ বদলে গিয়েছে ক্রেতাবিক্রেতার দেনাপাওনার সম্পর্কে। এই আবহেই বিরল ব্যতিক্রমী এক অনন্য শিক্ষকের হদিশ রয়েছে এপার বাংলার এক মফস্বল শহরে। পুরাকালে বাল্মিকী ও দ্রোণাচার্য তাঁদের নিজগৃহে রেখে শিষ্যদের দিয়েছিলেন অস্ত্রসস্ত্র শিক্ষা। আধুনিক কালের ওস্তাদ আবু দাউদ খাঁ (১৯২৬-১৯৯৯) তাঁর শিষ্য-শিষ্যাদের নিজগৃহে রেখে শিখিয়েছেন শাস্ত্রীয় সঙ্গীত, খেয়াল-ঠুংরি। তাঁর পৈত্রিক নাম আবু দাউদ। তবুও তিনি তাঁর সুরের বিস্তারের সঙ্গেই রসিকজন থেকে শুরু করে আমজনতা পর্যন্ত সবার কাছেই হয়ে উঠেছিলেন 'ওস্তাদ আবু দাউদ খাঁ'।Read More

বিনোদন

নতুন আলোয় “গান্ধারী”

সৌভিক চট্টোপাধ্যায় গত ১০ই জুন, শুক্রবার, সন্ধে বেলায় উত্তর কলকাতার মিনার্ভা থিয়েটারে মঞ্চস্থ হল বেলঘরিয়া রূপতাপস নাট্যদলের নবতম প্রযোজনা "গান্ধারীর অভিশাপ"। নাট্যকার শঙ্কর বসু ঠাকুর, নির্দেশক কৌশিক ঘোষ। "মহাভারত" এ গান্ধারী চরিত্রটি বহুস্তরীয়। কখনও সে আলোর ঝর্ণাধারায় মেতে ওঠা সুবলকন্যা অষ্টাদশী, কখনো সে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ তপস্বিনী, হস্তিনাপুর সম্রাজ্ঞী আবার কখনো শতপুত্রহারা শোকবিহ্বল মা। এই নাটকে, এই ত্রিস্তরীয় চরিত্রটিকে তিনটি আলাদা চরিত্রের মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলেছেন নির্দেশক, যা এককথায় অনবদ্য - অভিনয়ে তনুশ্রী সাহা, শিপ্রা মুখার্জি ও মালবিকা চক্রবর্তী খুব সুন্দরভাবে চক্ষুদান করেছেন এই তিনটি স্তরকে। এই তিনটি আস্তরণ সময়ে সময়ে একাত্ম হয়েছে যেটি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। "মহাভারতে" বর্ণিত বহুঘটনার বিশ্লেষণও বহুমাত্রিক। একই ভাবে, চোখে কাপড় বেঁধে রাখার প্রতিজ্ঞার কারণ বিভিন্নভাবে বিশ্লেষিত হতেই পারে। কেউ তাকে পতিপ্রেম বা পত্নীব্রত হিসেবে দেখবেন, কেউ দেখবেন মৌনমুখর প্রতিবাদ হিসেবে। কিছু এমন লেখাও পাওয়া যায় যেখানে ঘটনার বিভিন্নতা রয়েছে। সাধারণত আমরা জানি , ধৃতরাষ্ট্র জ্যোতিষাচার্য মহর্ষি জৈমিনির স্মরণাপন্ন হয়েছিলেন যুদ্ধের আগে, যেখান থেকে তিনি কৌরব পক্ষের সম্ভাব্য পরাজয় সমন্ধে জানতে পেরেছিলেন আবার কিছু লেখা হয়ত এমনও রয়েছে যেখানে দুর্যোধন সহদেব এর কাছে জানতে চেয়েছিলেন যুদ্ধের ফলাফল যুদ্ধের আগে - এই নাটকে দ্বিতীয়টি প্রদর্শিত হয়েছে। তাই নাটকের কনটেন্ট নিয়ে যদি আলোচনা করতে হয় লেখাটা অনেকটাই বড় হয়ে যাবে এবং সেটি বিতর্কেরও সৃষ্টি করতে পারে। সেইদিকে না গিয়ে অভিনয়ের বিষয়টিতে ফেরা যাক। আবহ খুব সুন্দর হয়েছে। আলো প্রক্ষেপন আরো ভাল হতে পারতো। চরিত্রগুলি আলো আঁধারীর মধ্যে দিয়ে তৈরী হলেও, মুখ অভিব্যক্তি একটু অস্পষ্ট। কোরাস চরিত্র এই নাটকটির ভাবনা রূপায়নে অন্যতম সহায়ক ।মঞ্চসজ্জা বুদ্ধিদীপ্ত। মোটের উপর, একঘন্টা-সোয়া একঘন্টায় খুব ভাল বেঁধেছেন পরিচালক নাটকটিকে। অন্যান্য চরিত্রে সহদেব আছেন বিদুর আছেন।শ্রীকৃষ্ণের চরিত্রে অভিনয় করেছেন পরিচালক কৌশিক ঘোষ নিজে। আমরা এমন এক সময়ে দাঁড়িয়ে আছি যেখানে কোনো Read More

বিনোদন

মৃত্যুপথযাত্রী আসছে

মৃত্যুপথযাত্রী পূর্বাঞ্চল নিউজ ডেস্ক ফাঁসির কয়েক ঘণ্টা আগে একজন আসামীর মনের অবস্থা ঠিক কি রকম হতে পারে? কি কি নিয়ম পালন করা হয় ফাঁসির আগে? ১২ বছর জেল খাটার পারেও ফাঁসি দিয়ে একটা জীবন শেষ করে দেওয়া কি হত্যা নয়? এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তর নিয়েই আসছে পরিচালক সৌম্য সেনগুপ্তর প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্যের ছবি মৃত্যুপথযাত্রী। কান সিং সোধা প্রযোজিত এই ছবিতে আসামীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন রাহুল বন্দোপাধ্যায়। পরিচালকের মতে ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসে এরকম এক্সপেরিমেন্টাল ছবি এর আগে কখনো তৈরী হয় নি। তাই মৃত্যুপথযাত্রীর সাথে অন্য কোনো সিনেমার তুলনা চলে না। এই ছবির প্রতিটি দৃশ্যে উঠে আসবে অন্ধকারাচ্ছন্ন কনডেমড সেলের চার দেওয়ালের মধ্যে আবদ্ধ একজন ফাঁসির আসামীর মনস্তাত্ত্বিক পরিবর্তন, তার অপরাধ বোধ, জীবনের প্রতি অমোঘ আকর্ষণ ও চরম মৃত্যু ভয়। অভিনেতা রাহুল জানিয়েছেন একজন মৃত্যু দন্ড প্রাপ্ত আসামীর চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তাঁকে প্রচুর পরিশ্রম করতে হয়েছে। প্রায় একমাস সমস্ত সামাজিক মাধ্যমে যোগাযোগ বন্ধ রেখে বিভিন্ন সংশোধনাগারে ঘুরে পরিচালকের নির্দেশে তাঁকে কঠিন ওয়ার্কশপ করতে হয়েছে। দিনের পর দিRead More

পশ্চিমবঙ্গবিনোদন

রঙিন পথের পাঁচালী প্রসঙ্গে কিছু ভাবনা

জনৈক বিচক্ষণ প্রযুক্তিপটু বাঙালির চমৎকার উদ্ভাবন– আইকনিক পথের পাঁচালী-র আইকনিক দৃশ্যগুলিকে তিনি সাদাকালো জাড্য থেকে মুক্তি দিয়েছেন ও রাঙিয়ে তুলেছেন বর্ণিল কালার ইমেজে৷ স্বভাবতই, ফেসবুকীয় বাহবার অন্ত নেই, প্রযুক্তিপ্রসূত মহাবিস্ময়কর ম্যাজিক বাঙালি মহলে হাতফেরতা হয়ে অনলাইনে ছড়াচ্ছে ক্রমশ। বেচারির জন্য কষ্ট হচ্ছে, কেন না 'আধুনিকীকরণের' স্বার্থে তাঁর প্রথমত টাইটেল কার্ডে সিনেমার নাম পাল্টানো উচিত ছিল, আমি খালি এটুকুই ভাবছি– পাঁচালির মত ব্যাকডেটেড, 'মধ্যযুগীয়', শ্লথ একটি ফর্মের নামই বা কেন অক্ষত থাকবে– প্রয়োজনে ওটিকেও পাল্টে 'আধুনিক' ব্যালাড, রক বা ব্লুজের আওতায় নিয়ে এলে খাটনি কম পড়ত কারিগরেরRead More

বিনোদন

বাজার, মৎস ও একটি পরিবার

হাসান আজারকাত জলাশয় ঘেরা একটি কাল্পনিক গ্রাম। জলাশয় ভর্তি মাছ। সেই গ্রামে যদি নিয়ম করে দেয়া হয় গ্রামের যে কেউ, যে কোনো পরিবার মাছ ধরে খেতে পারবে কিন্তু বিক্রি নিষিদ্ধ তাহলে দেখা যাবে সেই গ্রামের বাসিন্দারা ঠিক যতটুকুতে তাদের প্রয়োজন মিটছে/উদরপূর্তি হচ্ছে ততটুকুই জলাশয়গুলো থেকে মাছ তুলছে। বাড়তি মাছ তোলার কথা তারা চিন্তাই করছে না <a class="read-more" href="http://purbanchal.co/entertainment/1757/">Read more</a>Read More

বিনোদন

‘বিদূর ভেমুলা’ নাটক মঞ্চে

বিদূর ভেমুলা' নাটক দেখে রিভিউ লিখবো, দেখার আগেই ভেবেছিলাম। আসানসোলের কল্যাণ দা, ফোনে বললো, এ নাটক নিয়ে তুমি লেখো, অনেক মানুষের জানা দরকার। তাই রোহিত ভেমুলা যখন বিষয় তখন তো মানুষের মনে এ ঘটনা বারবার নক করিয়ে দেওয়ার দরকার।Read More

বিনোদন

কৃষ্ণকলি

কালো চুল, কালো জুতো কিংবা কালো জামা খুব পছন্দের সবার । অথচ আত্মার জামাটি সেই কালো রঙের হলেই অসুবিধে।সত্যি, আরেকবার চোখের সামনে আয়না টা ধরেছেন ডিরেক্টর সৌভিক চট্টোপাধ্যায় নিজের স্বল্প দৈর্ঘ্যের সিনেমা কৃষ্ণকলি র মাধ্যমে। আমাদের এই সমাজে যেখানে প্রতি মূহুর্তে সামাজিক মাধ্যমের বিভিন্ন জায়গায় ফর্সা হওয়ার বিউটি ক্রিমের বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়। বিভিন্ন Read More

বিনোদন

‘বিরহী’, এ এক অন্য রুটের গল্প

গ্রামবাংলার যাপনের চালচিত্র নাকি অন্য কিছু?গল্পের প্রথম থেকে একটা সাসপেন্স। যারা পয়সা খরচ করে এখন ওয়েব সিরিজ দেখছে, যারা প্রতিদিনের সেমি-পর্ণ দেখতে দেখতে ক্লান্ত তারা অবশ্যই দেখুন 'বিরহী'।উরিবাবা ইউটিউব চ্যানেলে বিনাখরচায় দেখতে পাবেন।যাইহোক বিষয়ে আসা যাক,বিরহী ওয়েব সিরিজের প্রথম পর্ব সাত্যকি ব্যানার্জীর গান 'জানু' দিয়ে শুরু।আমরা যাRead More

পশ্চিমবঙ্গবিনোদন

অ-রাবীন্দ্রিক যাপনে রাবীন্দ্রিক গায়কি

অ- রাবীন্দ্রিক জীবন অর্থাৎ রাবীন্দ্রিক জীবন যাপনের বিপরীত অবস্থা। এই বিষয়টিকে স্পর্শ করার চেষ্টা করব , এই দুই বিপরীত অবস্থানকে যতটা সম্ভব দেখানোর চেষ্টা করবো।Read More

বিনোদন

স্মৃতির পাতায় ফিরে দেখা মুকেশ

ভারতীয় হিন্দি চলচ্চিত্রের একজন জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী মুকেশ চন্দ মাথুর।যদিও সারা ভারতবর্ষ তাঁকে মুকেশ নামেই চেনেন।তাঁর গানেই মানুষ দশকের পর দশক,প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে বুদ হয়ে আছে। ১৯২৩ সালের ২২শে জুলাই অর্থাৎ আজকের দিনেই দিল্লির লুধিয়ানায় তাঁর জন্ম হয়।বেড়ে উঠেছেন দিল্লির দরবারি গানের আবহে।হিন্দি ছবির মোতিলাল এক বিয়ের আসরে কিশোর মুকেশের গান শুনে মুগ্ধ হয়ে যান এবং মুকেশকে মুম্বাই নিয়ে যান।সেখানে পন্ডিত জগন্নাথ প্রসাদের কাছে তিনি তাঁর গান শেখার ব্যাবস্থা করে দেন।১৯৪৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ' নির্দোষ' ছবিতে প্রথম তরুন মুকেশের স্বর্ণকন্ঠের সঙ্গে পরিচিত হন দর্শক - শ্রোতারা।১৯৪৫ সালে ' পেহলি নজর ' ছবিতে প্লেব্যাক গায়ক হিসাবে কেরিয়ার শুরু করেন তিনি।অভিনেতা রাজ কাপুর ও তাঁর যুগোল ভারতীয় সিনেমায় চিরস্মরণীয়।Read More