• November 29, 2022

Category : দেশ

দেশবিদেশ

গিগ ইকোনমি –গিগ ওয়ার্কার: পুঁজির শোষণ তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে।

গিগ ইকোনমি হল ইন্টারনেট এবং অ্যাপের উপর নির্ভরশীল একটা মুক্ত এবং বিশ্বব্যাপী বাজার ব্যবস্থা, যেখানে কর্মসংস্থান সাময়িক এবং মজুরি নামমাত্র। প্রতিষ্ঠানগুলো স্বল্পমেয়াদী চুক্তির মাধ্যমে তাদের ইচ্ছামতো কর্মীদের দক্ষতা অনুযায়ী একটা ভদ্রস্থ মাইনের অনেক নিচে কাজে নিয়োগ করে এবং কর্মীদের কাজের পরিমান এবং উপভোক্তার দেওয়া মূল্যায়নের (রেটিংস) ওপর পারিশ্রমিক প্রদান করে। বলাই বাহুল্য যে, চাকরি শেষে কোম্পানির আর কোন দায় দায়িত্ব নেই। Read More

দেশ

জি এন সাইবাবা সহ বাকিদের মুক্তির সিদ্ধান্ত স্থগিতের বিরুদ্ধে হিমাংশু কুমারের খোলা চিঠি

দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন অধ্যাপক ও সমাজকর্মী জি এন সাইবাবাকে বেকসুর খালাস করার বম্বে হাইকোর্টের সিদ্ধান্তকে সুপ্রিম কোর্ট স্থগিত করার পরে সমাজকর্মী হিমাংশু কুমার বিচারকদের উদ্দেশ্যে একটি খোলা চিঠি লিখেছেন, যেখানে তিনি সাম্প্রতিক সময়ে বিচার ব্যবস্থায় তাঁদের ভূমিকা সম্পর্কে কথা বলেছেন।বেশ কয়েকটি উদাহরণ দিয়ে,প্রকাশ্য অবিচার করার জন্য বিচার ব্যবস্থাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।এমনকি বলেছেন যে, তিনি এই চিঠির জন্য আদালত অবমাননার দায়ে দোষী এবং তাকে জেলের সাজা দেওয়া হোক।হিমাংশু কুমারের সম্পূর্ণ চিঠি-সম্পাদকRead More

দেশপশ্চিমবঙ্গ

রামকৃষ্ণ ভট্টাচার্য, প্রয়াণোত্তর চর্চা ও কিছু কথা

গত ২ অক্টোবর (গান্ধিজির জন্মদিনে) মাত্র পঁচাত্তর বছর বয়সে প্রখ্যাত মার্কসবাদী চিন্তক এবং লেখক-বুদ্ধিজীবী রামকৃষ্ণ ভট্টাচার্য প্রয়াত হওয়ার পর স্বাভাবিকভাবেই তাঁর ঘনিষ্ট জনমহলে তাঁকে নিয়ে চর্চার সূত্রপাত হয়েছে। এটি একদিক দিয়ে শুভসূচক। রামকৃষ্ণ ভট্টাচার্যের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে আমারও পরিচয় ছিল। এবং সেই পরিচয় খুন কম দিনের নয়।Read More

দেশপশ্চিমবঙ্গ

থুতু দিয়ে সাঁটানো সম্প্রীতির পোস্টার ও মুসলমান

থুতু দিয়ে সাঁটানো সম্প্রীতির পোস্টার ও মুসলমান কলমে, মামুন ফারুক (বিশিষ্ট সাংবাদিক, আকাশবাণী ও দূরদর্শন) আপত্তি আছে। আপত্তি আছে মুখুজ্জেদের বাড়ির মেজো ছেলের লায়লার দিকে ওরকম সম্মোহীত দৃষ্টিতে তাকানো নিয়ে নয়, আপত্তিটা তাকানো আর অনূভুতি গুলি উদযাপন করার পরেও অদ্ভুত এক বেড়া, এক চিরাচরিত বেষ্টনী ওদের সেই সদ্যকিশোর বেলার দৃষ্টিকে 'শুভদৃষ্টি' দিতে বাধা দিয়েছে তাই। ওদের ফুটে ওঠা হয়নি বিষে। আর এই বেড়া টা না উঠলে, থুথুর আঠা দিয়ে সম্প্রীতির বিজ্ঞাপন সাঁটানোর কায়দা, একালের মুসলমান স্রেফ 'রিজেক্ট' করছে 'রিজেক্ট। সাম্প্রতিক বেশ কিছু ঘটনা ও এক বহুল প্রচলিত বাংলা দৈনিকে বিজয়া পরবর্তী এক লেখা নিয়ে শুরু, তার লেখিকা ভদ্রমহিলাকে আমি জানিনা, চিনিওনা। উনার প্রতি আমার কোনো বিদ্বেষ নেই।লেখাটায় দৃশ্য নির্মান ভালো। উনার নষ্টালজিয়া সংক্রামকও বটেRead More

দেশ

হাকিম আজমল খান : ইতিহাসের এক ভুলে যাওয়া নাম

আমরা মোটামুটি কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নাইট উপাধি ফেরত দেয়ার গল্প সবাই জানি। কিন্তু ইনার সম্বন্ধে আমরা কয়জন জানি ? হাকিম আজমল খান ছিলেন একজন বিশিষ্ট চিকিৎসক এবং দিল্লির একজন প্রভাবশালী বাসিন্দা। তাঁরা বহু প্রজন্ম ধরে মুঘল শাহীর চিকিৎসক ছিলেন। তার ঠাকুরদা শরিফ খান দ্বিতীয় শাহআলমের চিকিৎসক ছিলেন। তিনি শরিফ মঞ্জিলের প্রতিষ্ঠাতা। এখানে চিকিৎসা করা হত এবং ইউনানি চিকিৎসাবিদ্যার শিক্ষাও দেওয়া হত। তিনি 1863 সালে আব্দুল মজিদ খানের ঐরসে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি দিল্লির করোলবাগে অবস্থিত আয়ুর্বেদিক ও ইউনানি টিবিয়া কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। তিনি দিল্লির জামিয়া মিলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ও একজন প্রতিষ্ঠাকারী ছিলেন। তার পত্রিকা 'আখমাল-ই-আকবর' ব্রিটিশ বিরোধী বহু কার্যক্রমে অংশীদার ছিল। Read More

দেশপশ্চিমবঙ্গ

রাজনীতি যখন ধর্মের দাস

রাজনীতি যখন ধর্মের দাস গৌতম বসু মল্লিক গত শতকের একেবারে গোড়ার দিকের কথা। দেশজুড়ে তখন বঙ্গভঙ্গ বিরোধী প্রতিরোধ আন্দোলন চলছে। লর্ড কার্জনের বঙ্গদেশকে ভেঙে দু’টুকরো করার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে যুক্ত ছাত্রদের সরকারি ইস্কুল-কলেজ থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হল ইংরেজ সরকারের পক্ষ থেকে। বহিষ্কৃত ছাত্রদের বিকল্প শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য তৈরি হল ‘জাতীয় শিক্ষা পরিষদ’। অধ্যক্ষ হয়ে এলেন অরবিন্দ ঘোষ। ১৯১ বউবাজার স্ট্রিটের ভাড়া বাড়িতে অরবিন্দ ঘোষের অধ্যক্ষতায় স্থাপিত হল ‘জাতীয় শিক্ষা পরিষদ’। কিন্তু না, অরবিন্দ বেশি দিন আর শিক্ষকতার মধ্যে নিজেকে আটকে রাখলেন না। তাঁরই নেতৃত্বে বাংলায় গড়ে উঠল সশস্ত্র বিপ্লবের দল। মুরারিপুকুরে তৈরি হল বোমা তৈরির কারখানা। বাইরে থেকে দেখলে অবশ্য তাকে ধর্মশিক্ষার কেন্দ্র বলেই মনে হত। তেমনই ছিল তার গড়ন। যুগান্তর, অনুশীলন সমিতির বিপ্লবীদের নিয়ে তৈরি সেই বোমার কারখানায় রীতিমতো হিন্দু-ধর্মশিক্ষাই দেওয়া হত। ১৪-১৫ বছরের তরতাজা ছেলেদের গীতা ছুঁইয়ে দেশের জন্য আত্মবলিদান দেওয়ার প্রতিজ্ঞা করানো হত। আধুনিক যুগে রাজনীতির সঙ্গে ধর্মকে মিশিয়ে দেওয়ার সূচনা তখন থেকেই। Read More

দেশ

ভারতবর্ষ ক্রমেই এক হিন্দু – ফ্যাসিবাদী প্রতিষ্ঠান হয়ে উঠছে

ভারতবর্ষ ক্রমেই এক হিন্দু - ফ্যাসিবাদী প্রতিষ্ঠান হয়ে উঠছে অরুন্ধতী রায় বিগত কয়েক মাস ধরে ভারতবর্ষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পার্টি বিজেপির শাসনাধীন রাজ্যগুলিতে প্রশাসন শুধুমাত্র সরকার বিরোধী আন্দোলনে অংশগ্রহণের সন্দেহে মুসলিমদের বাড়ি,দোকান ও ব্যবসাকেন্দ্রগুলি বুলডোজার চালিয়ে ভেঙে দিচ্ছে। ঐসব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা সগর্বে তাদের নির্বাচনি প্রচারে এই নীতি ঘোষণা করছেন।আমার কাছে এখন সেই সময় এসেছে যখন গভীরভাবে ত্রুটিপূর্ণ ভঙ্গুর গণতন্ত্র খোলাখুলি ও নির্লজ্জ ভাবে এক অপরাধমূলক হিন্দু-ফ্যাসিস্ট প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।মনে হয় হিন্দু অবতার রূপী গ্যাংস্টাররাই আমাদের শাসন করছে।তাদের কেতাবে মুসলিমরাই দেশের পয়লা নম্বর গণশত্রু।অতীতে গণহত্যা, পিটিয়ে মারা,পরিকল্পিত হত্যা,হেফাজতে মৃত্যু, ভুয়ো পুলিশ এনকাউন্টার ও মিথ্যা অভিযোগে কারাবাস-- এই ছিল মুসলিমদের শাস্তি দেওয়ার পদ্ধতি। এই তালিকায় নতুন ও খুবই কার্যকরী সংযোজন হল বুলডোজার চালিয়ে বাড়িঘর ও ব্যবসাকেন্দ্র গুঁড়িয়ে দেওয়া।এই ধ্বংস কার্যের প্রতিবেদন লেখার সময় বুলডোজারগুলিকে যেন এক দৈবী প্রতিশোধের অস্ত্র হিসাবে দেখানো হচ্ছে। শত্রুকে চূর্ণ করার এই ভয়ংকর ধাতু-নখ যুক্ত বিশাল যন্ত্রগুলিকে এমন ভাবে প্রদর্শন করা হচ্ছে যেন সেগুলি কোন দানব-দলনকারী পৌরাণিক দেবতার প্রতিরূপ। এগুলি এখন নতুন প্রতিশোধপরায়ণ হিন্দু জাতির রক্ষা কবচে পরিণত হয়েছে। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিসRead More

দেশ

পুঁজির সর্বগ্রাসী হানায় আজকের বাঞ্ছারামের বাগান লুঠ।।

ঝাড়গ্রামের সন্নিকটে ৫ নম্বর রাজ্য সড়কের পাশে 'সাধু রামচাঁদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ' ঠিক উল্টো দিকে জিতুশোল মৌজায় রশ্মি সিমেন্ট কোম্পানি বে-আইনি ভাবে স্পঞ্জ আয়রন কারখানা গড়ে তুলেছে।Read More

দেশ

সিন্ধু থেকে হিন্দু: উদ্ভব ও বিকাশ।

‘আর্য’ ও ‘হিন্দু’ শব্দের উৎপত্তির সাথে ‘জাতি’ ও ‘ধর্মের’ কোন যোগ ছিল না, পুরো ব্যাপারটাই ছিল এক ‘ভাষা’ গত ব্যাপার। এবং এই দুটি শব্দের উৎপত্তির সাথে বিদেশ তথা ‘ইরাণের’ নাম জড়িয়ে আছে। এখানে আমরা সেই ‘হিন্দু’ শব্দের উৎপত্তি ও বিকাশ সম্পর্কে জানার চেষ্টা করবোRead More

দেশপশ্চিমবঙ্গ

পরিযায়ী শ্রমিক – অধিকার প্রশ্নে

‘পরিযায়ী শ্রমিক’ এই শব্দবন্ধটি অর্থনীতি তথা সমাজবিজ্ঞানের পরিসরে একেবারেই নতুন নয় বরং বহুল চর্চিত এবং গবেষণার গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র। ২০১১ এর সেনসাস অনুসারে ভারতে পরিযায়ী শ্রমিকের মোট সংখ্যা ৪৫ কোটি। এদের মধ্যে ৬২% পরিযায়ী কিন্তু নিজের জেলার মধ্যেই অন্যত্র বসবাস করেন।Read More