• December 9, 2021

বর্তমান বিশ্বের সেরা উদ্ভাবক

 বর্তমান বিশ্বের সেরা উদ্ভাবক

কালাগ্নি রুদ্র

একটা সময় ছিল যখন তিনি প্রতি ঘন্টায় ১৮ ডলার মাইনের বয়লার পরিষ্কারের কাজ করতেন , আজ তিনি প্রতি ঘন্টায় প্রায় ১৪০ কোটি টাকা আয় করেন।
মাস্ক বলেছেন , আপনি এমন কম্পিউটার তৈরির কথা ভাবছেন যে নিজেই সিদ্ধান্ত নেবে , কিন্তু যখন সে তার সীমার বাইরে যেতে শুরু করবে , তখন কি করবেন ?
১৯ শতকের মহান বিজ্ঞানী নিকোলাস টেসলার নামে শুরু হয়েছিল ই কার (E car) কোম্পানি এবং এর প্রতিষ্ঠাতা এলন মাস্ক এখন সারা বিশ্বে বিখ্যাত । এলন মাস্ক এবং তার অনেকগুলি কোম্পানি সম্পর্কে কিছু কথা , মানুষটি আশ্চর্য কল্পনাশক্তির এক অসাধারণ ব্যক্তিত্ব।
সফল ব্যবসায়ী, সংশোধক , প্রকৌশলী , বিনিয়োগকারী এলন ১৯৭১ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। ১০ বছর বয়সেই তিনি প্রোগ্রামিংয়ে আগ্রহী হয়ে উঠেছিলেন তাই এই বিষয়ে পড়াশোনা চালিয়ে যান এবং ১২ বছর বয়সে ব্লাস্টার নামে একটি গেম কোড তৈরি করেন।
শুধু তৈরিই নয়, এটি একটি গেমিং কোম্পানির কাছে ৫০০ ডলারে বিক্রিও করেন।
তারপর কানাডায় ১৯৮৯ সালে ১৭ বছর বয়সে কুইন ইউনিভার্সিটিতে দু বছর পড়াশোনা করেন , পরে ১৯৯২ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভেনিয়ায় পদার্থবিজ্ঞান এবং অর্থনীতিতে ডিগ্রি অর্জনের পর ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি করার জন্য আবেদন করেন।
কিন্তু দুদিনের মধ্যেই তিনি সেখান থেকে বেরিয়ে যান , কিন্তু কেন ?
কারন তারাদের কাছে পৌঁছানোর খুব তাড়া ছিল তার। তিনি ঐ দুদিনেই বুঝে গিয়েছিলেন যে তার যে উদ্দেশ্যে তাতে পড়াশোনা খুব কার্যকর হবে না। বাস্তবে নেমে সরাসরি অনুসন্ধানে যেতে হবে। এবং তার আগে, আবিষ্কারের দিকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য উপকরণ সংগ্রহ করতে হবে।
zip -১৯৯৫ সালে ভাই কিম্বল মাস্কের সাথে অনলাইন সিটি গাইড জিপ ২ কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৯ সালে কম্পাক কম্পিউটার এটি কিনে নেয় X COM / pay pal.
সেই অর্থ দিয়ে মাস্ক ১৯৯৯ সালে online financial services ও email পেমেন্ট তৈরির জন্য একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন। এক বছর পর, এই কোম্পানি confinity নামে একটি কোম্পানির সাথে মিলে মানি ট্রান্সফার সিস্টেম প্রোভাইড করা শুরু করে।
এর উন্নত সংস্করণটি এখন G pay যা ফোনে দেখা যায়। ২০০২ সালে, paypal কে ebay নামের একটি সংস্থা ১.৫ বিলিয়ন ডলারে কিনে নেয়। এতে এলনের অনেক বেশি লাভ হয়েছিল প্রায় $ ১৬৫ মিলিয়ন । 2017 সালে এলন X. COM কিনে নেয় paypa-lএর কাছ থেকে, কারণ এর সাথে তার আবেগ জুড়ে আছে ।
SpaceX- ২০০২ সালে গোটা দুনিয়ার স্পেস নিয়ে কৌতুহল সৃষ্টিকারি কোম্পানি স্পেসএক্স প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল । বিশ্ব অবাক হয়ে দেখেছিল যে একটি বেসরকারি কোম্পানি এত কিছু করতে পারে, এর শুরুটাও খুব আশ্চর্যজনক।
ইন্টারকন্টিনেন্টাল ব্যালিস্টিক মিসাইলের ( ICBM ) ব্যবহৃত অংশ মেরামত করে international Space Station ( iss ) কে paylod পৌঁছানো যেতে পারে এমন ধারণা নিয়ে তিনি ICBM কিনতে মস্কো যান , সেখানে তিনি সফলও হয়েছিলেন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৩ টি ICBM এনেছিলেন।
তার সাথে ছিলেন মাইক গ্রিফিন, জিম ক্যান্ট্রেল, অ্যাডিও রেসির মতো সফল বিজ্ঞানীরা।
সেই বছরই তিনি রাশিয়ায় ফিরে যান , সেখানকার একটি কোম্পানি একটি পুরনো রকেট দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল , এটা ব্যয়বহুল ছিল কিন্তু তিনি এটি কিনেছিলেন, তার স্বপ্ন কেবল ISS কেই সফল করা নয় তার স্বপ্ন ছিল মঙ্গল গ্রহে উপনিবেশ তৈরি করা এবং তা প্রতিষ্ঠিত।
SpaceX -এখনও পর্যন্ত প্রথম বেসরকারি কোম্পানি যার রকেট বুস্টার স্যাটেলাইট পৃথিবীর কক্ষপথে যায় এবং ফিরে আসে। সেজন্য তার স্যাটেলাইট লঞ্চ অপেক্ষাকৃত সস্তা ।
মাস্কের ঐ ফিল্ডের কোন জ্ঞান বা অভিজ্ঞতা ছিল না , তা সত্বেও এই সাফল্যের জন্যই তার এত প্রশংসা করা হয় । এর জন্য তিনি অনেক পরিশ্রম করেছেন, নাসার অবসরপ্রাপ্ত বিজ্ঞানীদের একত্র করেছেন, বই পড়েছেন, দিনরাত পরিশ্রম করেছেন, তারপর স্পেস-এক্স প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।
স্পে্স-এক্স এর মাধ্যমে এখন আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশানে মানুষ পাঠানো সম্ভব হচ্ছে। ফ্যালকন-১ দিয়ে শুরু হওয়া যাত্রা এখন অনেক দূর এগিয়েছে। ফ্যালকন ৯, এবং ফ্যালকন হেভি স্টারশিপ , ক্রু-ড্রাগন ইত্যাদি ।
স্টারলিং নামে একটি অসাধারণ প্রকল্প শুরু করেছে স্পেসএক্স, যা সেটলাইটের মাধ্যমে ইন্টারনেট সংযোগ করবে, এতে ১২০০ সেটলাইট চালু হতে চলেছে।
Tesla- ১ জুলাই ২০০৩ -এ মার্ক টারপেনিগ ও মার্টিন ইবারহার্ট , টেসলা চালু করেছিলেন , এবং কয়েক মাসের মধ্যে, এলন মাস্ক এর সাথে জুড়ে যান , আগামীতে ইন্ডাস্ট্রি অটোমোবাইল হবে ইলেক্ট্রিকে , স্পেসএক্সের চলমান কাজ থেকে টেসলাতে ৬.৫ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছেন তিনি ।
E Car তৈরি করার সময় High Performance ও low Mileage সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, তারা এটা জানতে পেরেছিল এবং ২০০৮ সালে তিনি টেসলার প্রথম মডেল বাজারে আনেন , রোডস্টার।
এতে লিথিয়াম আয়ন এবং ব্যাটারি ব্যবহার করে এক চার্জে 420km 60mph speed in 3.7second দৌড়োনো প্রথম গাড়ি বিশ্বকে উপহার দেয়। টেসলার এই নতুন মডেল অটোমেটিক, X, 3, S সেমিমেট্রিক সাইবারট্রাক ইত্যাদি।
টেসলার সুদূরপ্রসারী চিন্তা হল ভবিষ্যতে সস্তা দামে বড় আকারে ইকার তৈরি করা ,
এজন্যই টেসলার ভারতে আসা ও ইকারের প্রচার করা।
solarcity- এটা মাস্কের আরেকটা Sustainable Enargy project , ২০১৬ সালে launch করা হয়েছিল, এতে শুধু solar cell থেকেই enrgy তৈরি করা হবে তা না ,ঘরের ছাদ এবং দেয়ালেও সৌর প্লেট বসানো হবে , এটি সফল বৈদ্যুতিক ক্ষেত্রে একটি বড় বিপ্লব এনে দেবে
boring – মেট্রো শহরের তাড়াহুড়ো দেখে, হৃদয় ও মন নিশ্চয়ই উদ্বেগে ভরে উঠছে মানুষের, ব্যয়বহুল পেট্রোল ডিজেল এবং মূল্যবান সময় ব্যয় , এই নিয়েও মাস্ক একটি সমাধান খুঁজে পেয়েছেন।
Via boring – এর মানে হল যে মাটির তলায় ভূগর্ভস্থ ট্রেনের tunel যেমন হয় ,ঠিক সেই মত ট্র্যাক তৈরি করা হবে , এবং গাড়ির টায়ার সেখানে লক করা থাকবে, গাড়ি চলবে ১৫০-২০০ কিমি প্রতিঘন্টা বেগে ১৫ মিনিটে ১ ঘন্টার যাত্রা।
nuralink- মাস্ক বলেছেন , আপনি সেই কম্পিউটার তৈরির কথা ভাবছেন যে নিজেই সিদ্ধান্ত নেবে , কিন্তু যখন সে তার সীমার বাইরে যেতে শুরু করবে , তখন কি করবেন ?
ভবিষ্যতে Ai থেকে লক্ষ লক্ষ চাকরি চলে যেতে পারে, তাই তিনি এটি সমর্থন করেন না। যখন কম্পিউটার মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করতে শুরু করবে তখন এর সমাধান কী হতে পারে- Nuralink প্রকল্পে, মানুষের মস্তিষ্কে একটি মাইক্রো চিপ ফিট করা হবে যা সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় হবে। এটি আপনার বৌদ্ধিক ক্ষমতা বৃদ্ধি করবে যাতে আপনি এআই কম্পিউটারকে পরাজিত করতে পারেন।
Hyperloop- এই প্রকল্পের প্রথম আবিষ্কারক হলেন এলন মাস্ক , ২০০২ সালে তিনি এই প্রকল্পটি বিশ্বের সামনে তুলে ধরেন। এতে low pressure tube এর মাধ্যমে
Pods-এর সাহায্যে প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে, কমপক্ষে ১০০০-১২০০কিলোমিটার গতিতে, গন্তব্যে নিয়ে যাওয়া যাবে। Susteninable energy ব্যবহার করে একে দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য তারা ২০১৯ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল, এশিয়ার মধ্যে IIT মাদ্রাজ প্রথম নির্বাচিত হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *