• December 4, 2021

কাউন্টি মাঠ ব্রিস্টল – বিলেতে ভারতের পয়া মাঠ

 কাউন্টি মাঠ ব্রিস্টল – বিলেতে ভারতের পয়া মাঠ

সুমিত গঙ্গোপাধ্যায় :- নেভিল রোড, বিশপটনের কাউন্টি মাঠে অর্থাৎ ব্রিস্টলে ভারতের মহিলা দল ও ইংল্যান্ডের মহিলা দলের মধ্যে মহিলা টেস্ট ক্রিকেট ম্যাচের আসর বসেছে। দ্বিতীয় দিনের মধ্যাহ্নভোজনের বিরতির ঘন্টা খানেক পরে ভারত ৪৬/০। ইংল্যান্ড ৩৯৬/৯ তুলে ইনিংসের সমাপ্তি ঘোষণা করেছে। স্নেহ রানা ৪ টি ও দীপ্তি শর্মা ৩ উইকেট নিয়েছেন।

না এই লেখা সেই ম্যাচ কে ঘিরে নয়। এই লেখা হলো মাঠ কে ঘিরে। মাঠটি লর্ডস বা ওভালের মতো পুরোনো না হলেও একেবারে নতুন নয়। ১৮৮৯ সাল থেকে এখানে ক্রিকেট খেলা হয়। গ্লোস্টারশায়ারের মাঠ বলে নিশ্চিত ভাবে ডব্লু জি গ্রেসের সঙ্গে স্মৃতিবিজড়িত। যদিও জে ব্রিগসের ৭ উইকেটের জন্য প্রথম ম্যাচেই এখানে হেরে যায় গ্রেসের দল।

এখানে মেয়েদের টেস্ট প্রথম হচ্ছে। ছেলেদের টেস্ট তো হয়ই নি। তবে odi- t20 হয়েছে।

ভারতের সঙ্গে এর সম্পর্ক অনেক দিনের। ১৯৬৭ সালে ভারতীয় স্কুল দল এখানে খেলেছে। ১৯৭৩ সালেও খেলেছে। এরপর ১৯৮২ সালে এখানে ভারতীয় দল প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলে। ম্যাচটা ড্র হয়। এই ম্যাচে অশোক মালহোত্রা প্রথম শ্রেণির খেলায় ৩৫০০ ও ক্রিস ব্রড (স্টুয়ার্ট ব্রডের বাবা) প্রথম শ্রেণির খেলায় ৩০০০ রান পূর্ন করেন।

১৯৯৪ সালে ভারতের অনূর্ধ-১৯ দল ইংল্যান্ডের অনূর্ধ-১৯ দলের কাছে চূড়ান্ত বিপর্যস্ত হয়ে যায় ১০ উইকেটে হেরে। লক্ষ্মন, অমল মজুমদার,কানিতকার সাংভি থাকা সত্বেও।

এরপরে ১৯৯৬ সালে ভারত ইংল্যান্ড সফরে গিয়ে গ্লোস্টার্সের বিরুদ্ধে প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলে। সে এক মনে রাখার মতো ম্যাচ। দ্রাবিড়ের ৮৪-র জবাবে সাইমন্ডসের (ওখানে কাউন্টি খেলতো)১২০। দ্বিতীয় ইনিংসে শ্রীনাথের নেতৃত্বে ভারতীয় বোলার ধ্বস নামায়। কিন্তু ৬৫ ওভারে ১৫৮/৮ তুলে গ্লোস্টার্স ম্যাচ ড্র করে।

এরপর ১৯৯৯ সালে পিতৃশোকগ্রস্ত শচীনের অপরাজিত ১৪০, আবার ২০০২ সালে শচীনের ১১৩, আবার ২০০৭ সালে শচীনের ৯৯। এই মাঠে যত odi ভারত খেলেছে, সব ম্যাচ শচীনময়।

২০০২ সালেই অনূর্ধ-১৯ ভারত এখানে ম্যাচ জিতে নেয়। ইরফান পাঠানদের দল ছিল সেটি।

২০১৪ সালে ভারতের odi পরিত্যক্ত হয় এই মাঠে। তারপর একটা t20 ম্যাচে রোহিত শর্মার ১০০ ছিল। সেটাও ভারত যেতে।

ভারতের মহিলা দল এখানে এর আগে একটা odi খেলে। পুনম রাউতের শতরান সত্বেও ভারত হারে।

শেষবার ২০১৭ সালে অনূর্ধ-১৯ ভারতীয় দল (শুভম গিল, পৃথ্বী শ’-র দল) ডাক ওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে ১ রানে একদিনের ম্যাচ জিতে নেয়।

  •  
  •  
  •  
  •  

Related post