• December 4, 2021

বাজুবন্ধ

 বাজুবন্ধ

সুদীপ মিশ্র :- দেখতে দেখতে লকডাউনের দ্বিতীয় বর্ষপূর্তি আগত। জীবনটাও অন্যভাবে এলোমেলো রকম হয়ে গেছে আমজনতার কাছে। তা সে বেঁচে থাকার অধিকার হোক, বা গণতান্ত্রিক অধিকার! আমরা এমন এক সমাজব্যবস্থায় বাস করছি যেখানে আমরা নিজেদের স্ব স্ব অস্তিত্ব সম্পর্কে যারপরনাই সন্দিহান। রাজারা রাজ্যপাটের থেকে রাজমুকুটের মূল্য খোঁজে বেশি। আমজনতা সেখানে একমাত্র শিখণ্ডী। ধর্ম আর রাজনীতিকে মিলিয়ে মনুষত্বের রংটা একটু পাতলা করে খাইয়ে দাও, তৃষ্ণার্ত জনতা সেটাই অমৃত ভেবে গলাধকরণ করে নেবে। কি প্রবল আত্মবিশ্বাস! যাত্রাদলের কুশীলবরা কে কোন অপেরার, বুঝতে বুঝতে চিৎপুর ও চিৎপটাং। আমজনতা তারা তো এখনও প্রকৃতির রোষে খাবি খাচ্ছে! দেশ বেচতে বেচতে রাজা আবার কবে আমাদের ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে ক্রীতদাস হিসাবে চালান করবেন, জানিনা। কর্পোরেট জলদস্যুর কাছে আজ শিক্ষা, সমাজ দুই নতজানু। খাবার ছুঁড়ে গণতান্ত্রিক অধিকার করায়ত্ব করায় সিদ্ধহস্ত রাজারাও বুঝে গেছে অশিক্ষার অন্ধকারে রেখে গণতান্ত্রিক প্রহসনের খেলায় সার্চলাইট ফেললে জনতার চোখ স্বাভাবিক হতে হতে পিছনের লেনদেন শেষ, পাবলিক তখনও পথের হোচট সামলাতে ব্যস্ত। দু- একটা প্রজন্মের বলিদান না হয় ইতিহাসের খাতায় লেখা থাকুক! গণতন্ত্রের কণ্ঠরোধ করা হোক বরং , গণতন্ত্রের পথরোধ নয়! সাধারণ মানুষ তো নিরবিচ্ছিন্ন অবকাশে চলশক্তিরহিত হয়ে গিয়েছে এতদিনে। গতন্ত্যর নেই, নেই সেকেন্ড অপশন। ১৫০ কোটির লোকজন এখন পরোক্ষ সামাজিকতার পছন্দে হাবুডুবু। গণতন্ত্রের প্রাথমিক অধিকার এখন আপোষ আর কদর্য সমর্পণ। বাঁচতে চাইলে শর্ত মানো, না হলে তোমার অধিকারে তুমি নিঃশর্ত নও এখন! বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের পরমাণু হয়েও গণতন্ত্রের আসল যোজ্যতা নির্ধারণের এক্তিয়ার হারিয়ে ফেলেছি আমরা। এরপর আছে আমিত্বের খেলা, হেথায় আপনি বাঁচলে বাপের নাম! তোমাদের জন্য ফুরসৎ কোথায়! সাধারণের পিঠে সান্ত্বনা আর মর্মিতার হাত রাখা তো স্যানিটাইজার মুছে দিচ্ছে, লড়াইয়ের গন্ধটাও তো শুঁকতেই পারছিনা অশরীরীর সাথে খেলায়, শুধু প্রামাণ্যজ্ঞাপনই প্রাধান্য পাচ্ছে নথি হিসাবে। ভবিষ্যতের চর্যাপদ হয়তো! কে জানে? এরকম নিরবিচ্ছিন্ন জীবনযাপনে অভ্যস্ত মানুষ এখন যথেষ্ঠ কেতাদুরস্ত। হাত পাততে পাততে হাত উঠিয়ে আওয়াজ তুলতে ভুলে গেছে! শ্রেণীবদ্ধ সংগ্রাম আজ গল্পকথা, সবাই আত্মজীবনী লেখার অভ্যাসে মশগুল। মুষ্টিবদ্ধ হাত আজ ফসিল হয়ে কোনো এক অজানা সভ্যতার কবরে। যারা মাটি খুঁড়ে সভ্যতার ব্যবচ্ছেদ করবে তাদের প্রতি অনুরোধ- কুঠারের আঘাতে শিকল কাটবেন না দয়া করে। বাজুবন্ধ ই থাক- বিক্রীত সভ্যতার অবিকৃত রূপ হয়ে….

  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related post