• December 4, 2021

কমিউনিস্ট আন্দোলনে অনুরাধা গান্ধী

 কমিউনিস্ট আন্দোলনে অনুরাধা গান্ধী

মধুরিমা সাহা
অনুরাধা গান্ধী ছিলেন কমিউনিস্ট আন্দোলনে যুক্ত এক বিপ্লবী নারী। ১৯৫৪ সালে কমিউনিস্ট ভাবাপন্ন এক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।  সমৃদ্ধ চিন্তাধারায় আবিষ্ট এক ভিন্ন পরিবেশে বেড়ে ওঠেন অনুরাধা। কলেজে পড়াকালীন যুক্ত হন প্রত্যক্ষ রাজনীতির সঙ্গে। ১৯৭০ সালে যুদ্ধ আক্রান্ত বাংলাদেশের শরণার্থী শিবির দেখে এবং মহারাষ্ট্রের দুর্ভিক্ষ-আক্রান্ত এলাকাগুলো দেখে, সামাজিক কাজে জড়িয়ে পড়েন তিনি। তারপরেই প্রোগ্রেসিভ ইয়ুথ মুভমেন্ট (PROYOM)-এ যোগ দেন অনুরাধা, যেখানে তিনি তত্কালীন নকশাল আন্দোলনের সাথে সংযুক্ত হন। গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা সংগঠন CPDR এর প্রতিষ্ঠাতাদের ভেতর তিনি ছিলেন অন্যতম একজন। ১৯৭৪ সালে ওয়রলি দাংগা প্রতিরোধে অংশ নিয়েছিলেন অনুরাধা। ১৯৭৫ সালে এফ্রো-আমেরিকান বিপ্লবী সংগঠনের আদলে হয়ে ওঠা দলিত প্যান্থার আন্দোলনেও যোগ দেন তিনি। ১৯৭৭ সালে দিল্লীতে অনুষ্ঠিত সিভিল লিবার্টি কনফারেন্সে রাজনৈতিক বন্দীমুক্তিদের পক্ষে জোরালো সওয়াল করেছিলেন এই নারী। ১৯৮২ সাল নাগাদ ট্রেড ইউনিয়ন এবং দলিত আন্দোলনকে আরো জোরদার করে তোলার লক্ষ্যে অনুরাধা বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে  বিড়ি, ঠিকা ও রেলশ্রমিকদের সংগঠিত করেছিলেন। তিনি এই সময় প্রায় বেশ কয়েক বার গ্রেফতার হন, যার ফলে আত্মগোপনে চলে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন। পরবর্তীতে বাস্তারের গোন্দ আদিবাসীদের সঙ্গে কাটান তিন বছর। রাজনৈতিক শিবির, শিক্ষা শিবির, স্বাস্থ্য শিবির ইত্যাদি বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে তাদের সচেতন করেন। অনুরাধা ছিলেন একজন গেরিলা যোদ্ধা। রাইফেল তৈরীর কাজটি নিজে হাতেই শিখে নিয়েছিলেন তিনি। ১৯৮৩ সালে বিয়ে করেন কোবাড গান্ধীকে। হিন্দি ইংরেজি মারাঠি এই তিন ভাষাতেই দক্ষ ছিলেন অনুরাধা। বিভিন্ন পত্রিকায় লেখালেখি করতেন স্বনামে ও ছদ্মনাম। মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য অনুরাধা গান্ধীর পলিসি পার্টির দলিল হিসেবে গৃহীত হয়েছিল। সেই সময় তিনি পার্টির নারী শাখার নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি ছিলেন। পরবর্তীতে ২০০৭ সালে ঐক্য কংগ্রেসে ভারতীয় কমিউনিস্ট পার্টি-র কেন্দ্রীয় কমিটির একমাত্র মহিলা সদস্য হিসেবে যোগ দেন অনুরাধা। ঝাড়খণ্ডে নারীর নিপীড়নের বিরুদ্ধে আদিবাসীদের শিক্ষাদান করার সময়ে সেরিব্রাল ম্যালেরিয়ায় আক্রান্ত হন তিনি। শেষ দিনগুলোতে, তিনি নারী ক্যাডারদের নেতৃত্বের দক্ষতা বিকাশের জন্য প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন। ২০০৮ সালের ১২ ই এপ্রিল মারা যান অনুরাধা গান্ধী। তাঁর কলেজের বন্ধু জ্যোতি পানোয়ানির কথায় অনুরাধা ছিল এমন একটি মেয়ে যে সব সময় হাসত এবং যে সব দিক থেকে একটি সমৃদ্ধ জীবন ছেড়ে দিয়েছিল অন্যদের জীবনকে পরিবর্তন করতে। প্রায় গোটা জীবন ধরে ‘নারীবাদ ও মার্কসবাদ’ নিয়ে চর্চা করা এই নারী, পার্টির অভ্যন্তরে পিতৃতান্ত্রিক ধ্যান ধারণার আধিপত্যের উপরও সবসময় সমালোচনা মূলক দৃষ্টিভঙ্গি পোষণ করে এসেছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *