• January 17, 2022

রণগ্রাম ব্রিজ ও গণসংগ্রাম মঞ্চ

 রণগ্রাম ব্রিজ ও গণসংগ্রাম মঞ্চ

মীর রাকেশ রৌশান

বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনে মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার ক্ষুণ্ণ হওয়ার জন্য মুর্শিদাবাদ জেলার বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা, সমাজকর্মী ও মানবাধিকার কর্মীদের মধ্য থেকে দাবি ওঠে জেলার মানুষের বিভিন্ন লড়াই আন্দোলনের পাশে থাকার জন্য একটা সংগঠনের প্রয়োজন। যে সংগঠন মানুষের ন্যায্য অধিকারের জন্য লড়াই করবে এবং মানুষের পাশে থেকে কাজ করবে।আর সেখান থেকেই মুর্শিদাবাদ জেলায় গণসংগ্রাম মঞ্চের পথ চলা শুরু।কৃষক আন্দোলনের শুরুর দিকে গণসংগ্রাম মঞ্চের সাইকেল র‍্যালি এবং পদযাত্রা জেলার মানুষের নজর কেড়েছিল। সালার থেকে বহরমপুর দীর্ঘ ৬০ কিমি সাইকেল র‍্যালিতে অংশগ্রহণ করতে দেখা গেছে ৮ থেকে ৬৫ বছরের মানুষকে।পাশাপাশি কৃষক আন্দোলনের সমর্থনে করেছিলো ‘রেল রোকো’,অনশণ কর্মসূচি। শ্রমজীবী মানুষের অসুবিধার জন্য জেলার বিভিন্ন প্রান্তে লোকাল ট্রেন চালুর দাবিতে স্টেশনে স্টেশনে ডেপুটেশন দিয়েছে। এ-র পরের লড়াই রণগ্রাম ব্রিজ।

মুর্শিদাবাদ জেলার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কান্দি মহকুমার সঙ্গে যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম বাস।রেলপথ প্রায় নেই বললেই চলে। এগারো নম্বর রাজ্য সড়ক কান্দিকে যুক্ত করেছে জেলার সদর শহর বহরমপুরের সঙ্গে।শুধু তাই নয় বর্ধমান ও বীরভূমের মানুষের বহরমপুর যাওয়ার অন্যতম সড়কপথ ১১ নম্বর রাজ্য সড়ক।ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বাসে চেপে বহু মানুষ যাতায়াত করেন কান্দি বহরমপুর পথে জীবিকার জন্যে, উন্নত চিকিৎসা ,শিক্ষা বা অফিস আদালতে বিভিন্ন কাজের জন্য।বাস ছাড়া বিভিন্ন পণ্য নিয়ে অনেক লরি আসা- যাওয়া করে। বাস ও লরির উপর নির্ভর করেন প্রধানত শ্রমজীবী মানুষেরই বিশাল অংশ। এই এগারো নম্বর রাজ্য সড়ক রণগ্রাম,চন্দ্রপ্রসাদপুর মৌজার উপর দিয়ে বয়ে গেছে দ্বারকা নদী।তার উপর ১৯৩৮সালে নির্মিত এই সেতু অবস্থিত। যত দিন গেছে স্বাভাবিকভাবেই যান চলাচল বেড়েছে, মানুষের চলাচল, পণ্য পারাপার বেড়েছে এবং দুর্বল হয়ে পড়েছে সেতুর কাঠামো। ঠিকমতো ও সময়মতো সংস্কারের কাজ হয়নি। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে জেলা প্রশাসন প্রথমে আংশিক ও পরে দু বছর ধরে স্থায়ী ভাবে সেতুর উপর দিয়ে বাস ও লরি সহ সমস্ত ভারি যান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে।যাত্রীসাধারণকে চন্দ্রপ্রসাদপুরে নেমে অনেকখানি হেঁটে আবার রণগ্রামে বাস ধরতে হচ্ছে। ফলে সময় ও অর্থ ব্যয় বেড়েছে। কান্দিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দামও বাড়ছে। শ্রমজীবী মানুষ আজ বিপন্ন। পরিবহন শ্রমিকদের অনেকে কাজ হারিয়েছেন, অন্যদের মজুরি কমেছে। নতুন সেতুর কাজ কতদিনে শেষ হবে সে বিষয়ে বাস্তুকার, জনপ্রতিনিধি, ভারপ্রাপ্ত আধিকারিকদের কথায় কোন সামঞ্জস্য পাওয়া যাচ্ছে না। আশ্চর্য! বিভিন্ন সময়ে বড় সেতু,ফ্লাইওভার অতি দ্রুত তৈরি হয়েছে এই জেলায়,রাজ্যে বা দেশে, অথচ মাত্র একশো মিটার সেতু তৈরীর ব্যাপারে প্রশাসন কোন যুক্তিসম্মত উত্তর দিতে পারছে না।

” গণসংগ্রাম মঞ্চ” অবিলম্বে নতুন সেতু নির্মাণ; সেতু নির্মাণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত সমস্ত ধরনের যান চলাচল উপযোগী বিকল্প রাস্তার ব্যবস্থা করা ও সমস্ত উৎখাত হওয়া বা হতে বসা পথ ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করার দাবিতে লাগাতার আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে স্মারকলিপি দিয়েছে তাঁরা, সাক্ষাৎ করে আলোচনা করা হয়েছে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি।


তাই এই লড়াইয়ে সাধারণ মানুষকে একত্রিত করার জন্য গত ৬-ই অক্টোবর’২১ কান্দির পাখমারা ডোবে নাগরিক সমাবেশ আয়োজন করে তাঁরা।সেখানে গণসংগ্রাম মঞ্চের আয়োজনে নাগরিক সমাবেশে উপস্থিত হয় বহু সাধারণ শ্রমজীবী মানুষ।এছাড়াও বাস মালিক ইউনিয়ন ও কান্দী ব্যবসায়ী সমিতি থেকে বিভিন্ন শ্রমিক ইউনিয়ন সেই নাগরিক সমাবেশে উপস্থিত হয়।আর সেই সমাবেশ থেকে সিদ্ধান্ত হয় তারা সিদ্ধান্ত গত ১৭-ই নভেম্বর’২১ পদযাত্রা করবে এবং জেলার বিভিন্ন প্রান্তে পথসভা করে সাধারণ মানুষের স্বাক্ষর সংগ্রহ করে ডিএম মারফত মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্য পাঠাবে যাতে তাড়াতাড়ি রণগ্রাম ব্রীজ তৈরি হয়।সেই মত বিভিন্ন জায়গায় প্রচার,পথসভা, পোস্টারিং,স্বাক্ষর সংগ্রহ করে।তাঁদের উদ্দেশ্য ছিলো কান্দী মহকুমার একটা বৃহৎ অংশের মানুষকে সঙ্গে নিয়ে জিবন্তী থেকে রণগ্রাম ও কান্দী বিশ্রামতলা থেকে রণগ্রাম দুটো ভাগে দুই প্রান্তের মানুষ পদযাত্রা করে রণগ্রামে উপস্থিত হয়ে মানুষের অধিকার দাবি তুলবে।কিন্তু প্রতিটি গণ আন্দোলনের মত এখানে বাধা হয়ে দাঁড়ালো প্রশাসন।

প্রশাসন DM Act এর দোহাই দিয়ে স্তব্ধ করে দিতে চাইল তাঁদের পদযাত্রাকে।ঠিক একই ভাবে রাজ্য প্রশাসন বর্তমান সাংসদ অধীর চৌধুরী পদযাত্রারও অনুমিত দেয়নি।কিন্তু গণসংগ্রাম মঞ্চ সাময়িক ভাবে পদযাত্রা স্থগিত রাখলেও সেদিন জিবন্তী ও গোকর্ণে পথ সভা করে । তারপর রণগ্রাম ও কান্দী বাসস্ট্যান্ডে মানব বন্ধন করে।ঠিক তারপরেই কান্দী প্রশাসনের পক্ষ থেকে পুরাতন ব্রীজ খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।প্রশ্ন এখানেই, যে ব্রীজের অবস্থা ভালো নেই বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্ধ করা হয়েছিলো, সেই ব্রিজ রাতারাতি ভালো হয়ে গেলো কি করে? ২৭-শে নভেম্বর গণসংগ্রাম মঞ্চ বহরমপুরে একটি প্রেস মিট করে।সেখান থেকে গণসংগ্রাম মঞ্চের আহ্বায়ক কমিটির আশীষ পাত্র ও মিলন মালাকার দাবি করে পুরাতন ব্রীজে বাস চলাচল অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ, তাই অতিদ্রুত যেন নতুন ব্রিজ কাজ সম্পূর্ণ ও বিকল্প রাস্তা চালু করা হয়।এছাড়া তাঁরা তিনটি দাবির কথা বলেন
১. অবিলম্বে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় আপাতভাবে সমস্ত গণপরিবহন ও সাধারণ মানুষের অবাধ যাতায়াতের জন্য বিকল্প একটি রনগ্রাম সেতু তৈরি করতে হবে।

২. দীর্ঘসূত্রতায় আটকে না রেখে স্থায়ী সেতু তৈরীর কাজ অতি দ্রুততার সাথে অবিলম্বে শুরু করতে হবে।

৩. এই সেতু তৈরীর জন্য ঐ এলাকায় ৫৬ জন হকারেরে জীবন-জীবিকা ক্ষতিগ্রস্ত হবে তাদের অবিলম্বে অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে সমস্ত দিকটা ভেবে পুনর্বাসন ও অর্থনৈতিক ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

এরপরের কর্মসূচি ছিল তিন দিনের ধারাবাহিক অনশণ সেটাতেও বাধা হয়ে দাঁড়ালো প্রশাসন। তাই বিগত ২৭ শে নভেম্বর তাঁরা রণগ্রামে পথসভা করে।এই আন্দোলন আর রণগ্রাম ব্রীজ কত তাড়াতাড়ি সুরাহা হবে তা ভবিষ্যৎ বলে দেবে।তবে খুব শীঘ্রই কান্দী পৌরসভার ভোট আর একদিন বিরোধী রাজনৈতিক দলের চাপ এবং সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠন গণসংগ্রাম মঞ্চ যেভাবে রণগ্রাম ব্রিজ নিয়ে আন্দোলন করছে তাতে রাজ্যপ্রশাসন অনেকটাই চাপে আছে এইটুকুই বলতে পারি।

মীর রাকেশ রৌশান : কবি,প্রাবন্ধিক ও সমাজকর্মী

  •  
  •  
  •  
  •  

3 Comments

  • অধিকার আদায়ের জন্য যে যে সাথীরা আন্দোলনে যুক্ত হয়েছেন, তাঁদের সকলকে অভিনন্দন। লেখককে শুভেচ্ছা এমন একটি বিষয় তুলে ধরার জন্য।

  • ধন্যবাদ দাদা

    • গণসংগ্রাম মঞ্চকে অভিনন্দন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related post