• May 29, 2022

বিধর্মী নারীদের প্রতি বিকৃত যৌনতার ভাবনাই কি ধর্মরক্ষার মূল ভিত্তি ছিল নীরজের?

 বিধর্মী নারীদের প্রতি বিকৃত যৌনতার ভাবনাই কি ধর্মরক্ষার মূল ভিত্তি ছিল নীরজের?

সেখ সাহেবুল হক

অবশেষে অসমের জোরহাটের বাড়ি থেকে গ্রেফতার হয়েছে ‘বুল্লি বাই’ অ্যাপ নির্মানের মাস্টারমাইন্ড ২০ বছরের নীরজ বিষ্ণোই। দিল্লি পুলিশের তথ্য প্রকাশ্যে আসতে খুলে যাচ্ছে একের পর এক রহস্য৷ জানা গেছে নীরজ ভীষণভাবে পর্ন আসক্ত। সম্পতি তার ল্যাপটপে ডাউনলোড করা হয়েছে প্রায় ১৫৩টি পর্ন ফিল্ম। এছাড়াও বিভিন্ন অশালীন, যৌনগন্ধী কনটেন্ট পাওয়া গেছে৷

সবচেয়ে আশ্চর্যজনকভাবে প্রকাশ্যে এসেছে বয়স্ক মুসলিম মহিলাদের প্রতি তার অস্বাভাবিক যৌন বাসনার কথা। জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে বয়স্ক মুসলিম নারীদের নিয়ে সেক্সুয়াল ফ্যান্টাসির ব্যাপারে। এর আগে বুল্লি বাই-এর মতোই ‘সুল্লি ডিলস’ নামে ওয়েবসাইট খোলা হয়েছিল। যেখানে প্রতিবাদী মুসলিম মহিলাদের ভার্চুয়াল নিলাম করার জন্য তাদের ছবি পোস্ট করার ঘটনায় শোরগোল পড়েছিল৷ তাতেও নীরজের জড়িত থাকার সম্ভাবনা রয়েছে৷

‘ধন্যি ছেলের অধ্যবসায়!’ মাত্র ১৫ বছর বয়সে ভার্চুয়াল দুনিয়ার সঙ্গে পরিচয় হয় নীরজের। তারপর প্রযুক্তি এবং ইন্টারনেটকে ব্যবহার করে কর্মকাণ্ডের জাল বিস্তৃত করতে থাকে৷ বোন স্কুলে অ্যাডমিশন না পাওয়ার ‘বদলা’ নিতে মাত্র ১৬ বছর বয়সে সেই স্কুলের ওয়েবসাইট হ্যাক করে। সে যাত্রায় নিস্তার পেলেও ক্রমশ তৈরি হতে থাকে একজন সাইবার অপরাধীর ভিত৷ চলতে থাকে নানান পরীক্ষা। কুকীর্তিকে আরও উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার প্রয়াস৷ যার বর্তমান রূপ পুলিশের জালে ধরা পড়া নীরজ বিষ্ণোই৷

বুল্লি বাই অ্যাপ সংক্রান্ত ন্যক্কারজনক কাণ্ডে গ্রেফতারির পর ভোপালের ভিআইটি-র কম্পিউটার সায়েন্স ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিটেক পড়ুয়া নীরজকে তার কলেজ সাসপেন্ড করেছে। তদন্তের পর বুল্লি বাই অ্যাপের কোড স্ক্রিপ্ট তার ল্যাপটপ থেকে উদ্ধার হয়েছে। ল্যাপটপটি উন্নত গেমিং মেশিন৷ শুধু গেম, পর্ন আর সোশ্যাল মিডিয়ায় ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ানোই তার রোজনামচা। বাস্তবের চেয়ে ভার্চুয়াল জগতে বুঁদ হয়ে নিজস্ব সাম্রাজ্য স্থাপন৷ সোস্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে ভুয়ো অ্যাকাউন্ট, ইউজার হ্যান্ডল বানিয়ে ভার্চুয়াল হিংসার নানান পরিকল্পনা৷ ঠিক যেভাবে কাজ করে আইটি সেল৷ সেই একই মডেলে মহিলাদের টার্গেট করা শুরু হয়৷ তবে এক্ষেত্রে মাইনে কিংবা নেতা হয়ে ওঠার বিনিময়ে কিছু নয়৷ নিজ উদ্যোগেই দেশোদ্ধার করার দায়িত্ব কাঁধে নিয়েছিল নীরজ৷

অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি ২১ বছরের একটা ছেলের বাস্তব জীবনে কোনও বন্ধু নেই৷ ভার্চুয়াল দুনিয়ায় ছদ্ম নামে তার অস্তিত্ব।
খতিয়ে দেখলে বোঝা যাবে প্রেম করার বয়সে, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়ার বয়সে সারাক্ষণ বিদ্বেষ লালিত হচ্ছে৷ নির্দিষ্ট ধর্মের মহিলাদের যৌনগন্ধী আক্রমণের মধ্যে অদ্ভুত বীরত্ব খুঁজে পাচ্ছে এক শ্রেণির যুবরা। প্রতিবাদ করলে দরদাম নির্ধারণ ভারতীয় ভার্চুয়াল জগতে খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। স্বঘোষিত হিন্দুত্ববাদের বাহকদের ভিন্নধর্মী মহিলাদের সম্মানহানি, কিংবা আব্রুর নিলাম করাই যেন দেশসেবার অঙ্গ৷

টুইটারে বিভিন্ন সময় আক্রমণ নেমে এসেছে সংখ্যালঘু মহিলাদের প্রতি৷ শাহিনবাগের বিলকিস দাদি থেকে শুরু করে কেউই বাদ যাননি৷ অভিনেত্রী শাবানা আজমি, আর.জে সাইমা-দের বারবার আক্রমণের শিকার হওয়া একটা পরিকল্পিত পথে পরিচালিত হয়েছে৷ তবে সবকিছুকে ছাপিয়ে গেছে নীরজ। তার বিদ্বেষের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে বিকৃত যৌনতার অভীপ্সা৷ অনেকটা ধর্ষণ করে উচিত শিক্ষা দেওয়ার মানসিকতা আর সেভাবেই ধর্মরক্ষার চেতনা৷ এক্ষেত্রে ভার্চুয়াল জগতকেই বেছে নিয়েছে সে৷ কারণ বাস্তবে ওই সকল মুসলিম নারীদের নাগাল পাওয়া সম্ভব নয়।
স্বভাবতই প্রশ্ন জাগছে, ধর্মবিদ্বেষী মানসিকতা কি ঘুরিয়ে ধর্ষকামী করে তুলছে?

যুবসমাজ বিদ্বেষের পথ বেছে নিচ্ছে৷ মহিলাদের প্রতি চরম অসম্মানজনক কাজে ধর্মের অনুসঙ্গ যুক্ত হচ্ছে৷
কটুক্তি, ট্রোলিং, ভার্চুয়াল বুলিংয়ের মাধ্যমে ‘ধর্মরক্ষা’-র যে ট্রেন্ড চালু হয়েছিল, তার উদ্দেশ্য ছিল রাজনৈতিক প্রোপাগাণ্ডা ছড়ানো৷ ভিন্নধর্মীদের বিরুদ্ধে সংখ্যাগুরুকে ক্ষেপিয়ে মেরুকরণের রাজনীতি করা। সেই ট্রেন্ড ক্রমশ নীরবে ফ্র‍্যাঙ্কেনস্টাইনের আকার নিয়েছে। পছন্দের রাজনৈতিক দলের প্রতি আনুগত্যপ্রবণ হয়ে ভ্রান্ত দেশভক্তি এবং নিজ ধর্মের মহত্ত্ব প্রতিষ্ঠার ছুতোয় হয়ে উঠছে ভার্চুয়াল ধর্ষক, সাইবার ক্রিমিনাল।

ইতিহাসে চোখ রাখলে দেখা যাবে ফ্যাসিস্ট মনোভাবের সমর্থকদের মধ্যে সেক্সুয়ালি পারভার্ট হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে। নাৎসি জার্মানি নিয়ে ডা: উইলহেলম রাইখ তাঁর গবেষণায় উল্লেখ করেছিলেন৷

দেশে নারী সুরক্ষার হাল তথৈবচ। ইন্টারনেট কি তবে ভার্চুয়াল রেপিস্টদের স্বর্গরাজ্য হয়ে উঠছে? অল্পবয়সী নীরজদের সাইবার ক্রিমিনাল হয়ে ওঠা সেদিকেই আঙুল তুলছে।

সেখ সাহেবুল হক : কবি,গদ্যকার, সাংবাদিক।

  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Related post