• May 29, 2022

আবদুস সালামের কবিতা

 আবদুস সালামের কবিতা

মা

নিরব অভিমান পিষে পিষে মশলা বানায় রোজ
অধিকারের হাঁড়িতে রান্না হয় নিঃশব্দ অন্ধকার
যন্ত্রণা আর বিষাদগুলো ঘুরঘুর করে সারাদিন
উল্লাসের বাজপাখি ছোঁ মেরে তুলে নিচ্ছে সব সুখ

চলেছে বিবেকের লাশ বয়ে সভ্যতার বক
নড়বড়ে সেতু দিয়ে পার হয় হাঁটাহাঁটির গল্প
ভাঙ্গা নৌকায় দাঁড় টানে সফলতার ঘাটে

দ্বান্দ্বিক চাঁদ ঝলসে দেয় মফস্বল সংসার
পুরুষ বিশ্বাস সেবনে উপশম হয় নৈতিক বিলাস

খুলে যায় বিবর্ণ দুয়ার
মৃত শবের উপর ভনভন করে মাছি
বসবাসের ঠিকানায় গড়ে ওঠে সভ্যতার কবরস্থান

প্রহসন

করোনা মাখানো দীর্ঘশ্বাস গুনছে প্রহর শব্দহীন যাতনা গুলো ধূপের মতো জ্বলে বৃষ্টির সময় চুমু খায় বিপন্ন বিশ্বাস

শব্দের আলনায় টাঙ্গিয়ে রাখি স্বপ্ন রক্তাক্ত বিবেক জীবনের পিঠে চড়ে
আত্মক্ষরণের পুকুরে সেরে নিই স্নান
সময়ের শৃগাল শোনায় অন্ধকারের ভাষণ
খসে যায় পলেস্তারা

বসবাসের ঠিকানায় সভ্যতার দাফন হয় ভাবের ঘরে রুদালীরা সাজায় কান্নার প্রহসন

মৃত শবের উপর ভন ভন করছে মাছি প্রহর গুনে প্রত্যাশার বক
আশ্বাস গুলো ঢেউয়ে ঢেউয়ে হয় মাতোয়ারা
পাথরের ভগবান বসে আছে প্রার্থনার ঘরে
বিশ্বাসের চাতালে মাথা ঠুঁকি রোজ
সিঁদুরে চোখে পুরোহিত ছিটিয়ে দিচ্ছে শান্তিজল
রূপকথার পাতালপুরীতে তলিয়ে যাচ্ছে বৈভবের নিয়মকানুন

অসময়

তীরে বসে গুনছি প্রহর
গাইছি বেলা শেষের গান
ফুলেরা সব ঝরে গেছে
ফুরিয়ে গেছে দখিনা হাওয়ার প্রাণ
ফুল পাখিরা গাইছে এখন ঝরা পাতার গান

বেলা শেষের করুন রোদ
মুখে এঁকেছে আল্পনা
উঠোন জুড়ে দেয় পাহারা দেয়
জীবন মৃত্যুর ছানা

সব যুদ্ধ থেমে গেছে ফিরে চলো ডেরায়
থামুক বন্দুকের কলরব
সন্ধ্যা নামছে পাড়াজুড়ে মৌনকঙ্কালের উৎসব

আশংকা যত মৌন অন্তরে
নদী দীর্ঘ শ্বাস ছাড়ে
মৃত্যু দূত হানা দেয় জাগরণের ধারে
নদী তখন অজান্তেই মাটির গান ধরে

আরোগ্য হীন অন্ধ পৃথিবীর ইতিহাস

একটা দেশের সব ঘৃণার মুখ এই দিকে

ঘৃণার উপসংহার টানতে টানতে লেলিয়ে দিচ্ছে মৃত্যুদ‍্যূত
কবরের আঙিনায় চেয়ে আছে শূন্যতা
অশ্লীল ঈগলনখ আঁচড়ে দিচ্ছে দেশের আত্মা
বিশ্বাসের নৌকা চলেঅবিশ্বাসের নদীতে
হাবুডুবু খায় নিম্নবর্গীয় মানুষ

রাত গভীর হলে ঈশ্বরেরা পাড়ায় আসে

বিষন্ন দিন,বিপন্ন হয় মা বোনদের সম্ভ্রম
বিষন্ন রাত নেমে আসে পাড়ায়
সীমাহীন বাধা নিয়ে সূচক বাড়ে বিচ্ছিন্নতার

নিস্তেজ শূন্যতা নিয়ে কবরখানার কবিতা লিখি

ভুলে যায় শৈশবের গল্প
ভুলে যায় ঝঞ্ঝা বিধ্বস্ত মায়ের মুখ
ঘুমের ভিতর দুঃস্বপ্নের চলে আনাগোনা
ধর্ষিত হয় সংবিধানের প্রতিটি অনুচ্ছেদ বিচারের বাণী নিভৃতে কাঁদে

ঈশ্বর ও জানতে চাই বংশ ঠিকুজি
কুলুঙ্গি হাঁতড়ে আনতে বলে বাসস্থানের দলিল

চেনা মুখগুলো ডেকে উঠছে হুক্কাহুয়া সুরে

সুরক্ষা বাহিনী পাহারা দেয় সীমানা বদলের রাস্তা

  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.