• May 29, 2022

আর কতদিন চলবে এ বাংলায় প্রহসনের নির্বাচন?

 আর কতদিন চলবে এ বাংলায় প্রহসনের নির্বাচন?

নওফেল মহাঃ সাফিউল্লা (আলবার্ট)

গতকাল আমাদের প্রিয় শহর কলকাতার কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পন্ন হল বাতাসে বারুদের গন্ধ ও মাটিতে রক্তের দাগের মধ্য দিয়ে৷ ঠিক সাত মাস আগে এ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে রাজ্যের বর্তমান শাসক দল তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় আসীন হয়েছে, আর অন্যদিকে স্বাধীনতার পর এই প্রথম বাংলাতে বামশূন্য বিধানসভা প্রত্যক্ষ করলো বাংলার জনগণ৷ সেইসাথে উল্লেখ করতে হয় আসন সংখ্যার নিরিখে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল হিসেবে উঠে এসেও কার্যত ছন্নছাড়া ভারতীয় জনতা পার্টি৷ প্রতিদিন ভারতীয় জনতা পার্টির নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে নেতৃত্ব রাজ্যের শাসক দলে নাম লেখাচ্ছে৷ এসব ঘটনার পর রাজ্যের অতি বড়ো তৃণমূল বিরোধীর মনের মধ্যেও কোন সংশয় ছিল না এই নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে অসুবিধা হবে৷ তথাপি কোলকাতা সাক্ষী থাকলো রাজ্যের শাসক দলের সৌজন্যে এক প্রহসনের ভোট৷ তাহলে কি তৃণমূল কংগ্রেসের নিজের মধ্যে কি আস্থার অভাব ছিল? না এরাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় থাকলে গণতন্ত্রের উৎসব এই সংস্কৃতিতে চলবে!

এই নির্বাচনের প্রাক্কালে তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বোচ্চ নেতৃত্বের দিক থেকে বারবার ঘোষণা করা হয়েছিল নির্বাচনী সভা থেকে জনগণের গনতান্ত্রিক অধিকার কেউ হরণ করলে তার বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ কার্যত স্বীকার করে নিয়েছিল অতীতে তৃণমূলের শাসনকালে জনগণের প্রকৃত রায়ের প্রতিফলন ঘটেনি৷ তথাপি সর্বোচ্চ নেতৃত্বের কথায় কমবেশি কিছু মানুষের মধ্যে হয়তো ভরসা হয়েছিল তৃণমূলের জমানায় ব্যতিক্রমের নির্বাচন কলকাতা দেখবে৷ কিন্তু নেতৃত্বর নির্দেশ কার্যত অমান্য করে কলকাতা দেখলো আবার একটি হিংসা, লুঠের ভোট৷ এখন প্রত্যাশিত ভাবে বাংলার মানুষ ভাবছে রাজ্যের তৃণমূল সুপ্রিমো একসময় বলতেন তিনি গুন্ডা কন্ট্রোল করেন, এখন কি তাহলে রাজ্যের গুন্ডারা তাকে কন্ট্রোল করছেন?

আসলে আবার বিষয় টা এরকম নাও হতে পারে৷ কর্পোরেশন নির্বাচনের মত স্থানীয় নির্বাচনে শাসক দলের স্থানীয় নেতা থেকে কাউন্সিলারদের কাটমানীর সৌজন্যে গত কয়েক বছরে বেড়ে ওঠা পাহাড় প্রমান সম্পদ থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের সাথে প্রভু ভৃত্যের মত ব্যবহার কার্যত তাদের জনবিচ্ছিন্ন করে ফেলেছিল৷ অন্যদিকে সদ্য শেষ হওয়া বিধানসভা নির্বাচনে বামপন্থীদের শূন্য হওয়ার পরও রেড ভলেন্টিয়ার থেকে শুরু করে বামপন্থী ছাত্র-যুব সংগঠন গুলির ‘মানুষ মানুষের জন্য’ এই আপ্তবাক্যকে পাথেয় করে অতিমারী কালে মানুষের পাশে থাকার যে নিদর্শন দেখিয়েছিল তা কলকাতার জনগণ প্রত্যক্ষ করেছে৷ আর অন্যদিকে ভারতীয় জনতা পার্টির ছন্নছাড়া দিশাহীন অবস্থা, তার সাথে যুক্ত তৃণমূলের অভ্যন্তরীণ গোষ্ঠীকোন্দল যার কারণে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে তৃণমূলকে আতঙ্কিত করে তুলেছিল৷ সে কারনে রাজ্যের শাসক দল নিজেদের কর্পোরেশন দখল থেকে শুরু করে প্রতিটা ওয়ার্ডের কাউন্সিলার পদপ্রার্থীরা নিজেদের ওয়ার্ড সুরক্ষিত করতে আরও একটি প্রহসনের নির্বাচনের উপহার দিল রাজ্যের জনগণকে৷ সারাদিন বাংলার মানুষ প্রত্যক্ষ করল বোমার আওয়াজ, বিরোধী দলের প্রার্থী, ইলেকশন এজেন্ট, কর্মীদের উপর আক্রমন থেকে শুরু করে বুথ দখল৷ ছাপ্পা ভোট দিতে দিতে বাদ গেল না সদ্য প্রয়াত আরএসপি নেতা তথা কোলকাতা কর্পোরেশনের ৯৪ নং ওয়ার্ডের প্রাক্তন বাম কাউন্সিলার সেতাবুদ্দিন খোন্দেকারের নামে ভোট দিতে৷ দুর্ভাগ্যের হলেও সত্যি কথা গত ২৯ শে নভেম্বর (২০২১) প্রয়াত হয়েছেন এই আরএসপি নেতা সেতাবুদ্দিন খন্দেকার৷ ১৫২- টালিগঞ্জ বিধানসভার অর্ন্তগত কলকাতা কর্পোরেশনের ৯৪ নং ওয়ার্ডের ২নং অংশের ৭৬৪নং সিরিয়ালের ভোটার৷ যার ভোটার আই ডি কার্ডের নং ছিল WB/23/150/201243, সদ্য সমাপ্ত তথাকথিত গণতন্ত্রের উৎসবে না ফেরার দেশে থেকেও তিনি ভোট প্রদান করলেন৷ গণতন্ত্রের কি অপার মহিমা মাননীয়া! আর কতদিন এভাবে চলবে কল্লোলীনি কলকাতা সহ এ বাংলার গণতন্ত্রের উৎসব!

নওফেল মহাঃ সাফিউল্লা (আলবার্ট) : রাজনৈতিক কর্মী

  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Related post